গণমাধ্যমে ১১ মার্চের ধর্মঘট অনিশ্চিত

রবিবার, ১০/০৩/২০১৩ @ ১১:১৫ পূর্বাহ্ণ

প্রেসবার্তাডটকম ডেস্ক:
সাগর সরওয়ার-মেহেরুন রুনি সাংবাদিক দম্পতি হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের গ্রেফতারের দাবিতে ১১ মার্চ গণমাধ্যমে ধর্মঘট অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে৷ সাংবাদিক নেতারা দেশের বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে নতুন সিদ্ধান্ত নিতে পারেন৷
এদিকে, সাংবাদিক ঐক্যও দুর্বল হয়ে পড়েছে৷

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি নিহত হওয়ার পর সাংবাদিকরা ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তোলেন৷ তারা অপরাধীদের গ্রেফতার এবং বিচারের দাবিতে প্রতিবাদ সমাবেশ, মানববন্ধন, কালোব্যাজ ধারণসহ শতাধিক কর্মসূচি পালন করেন৷ আর গত ১১ই ফেব্রুয়ারি হত্যাকাণ্ডের এক বছরে প্রেসক্লাবের সামনে সাংবাদিক মহাসমাবেশ থেকে কঠোর কমসূচি ঘোষণা করা হয়। সেই কর্মসূচি হলো ১১ মার্চ বাংলাদেশের সংবাদপত্র, রেডিও, টেলিভিশন ও অনলাইনসহ সব ধরনের গণমাধ্যমে ২৪ ঘণ্টার ধর্মঘট৷

তবে এই কর্মসূচি শেষ পর্যন্ত অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে৷ এখন পর্যন্ত কর্মসূচি বাস্তবায়নের কোনো উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না৷ গণমাধ্যম মালিক বা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সাংবাদিক নেতারা কর্মসূচি বাস্তবায়নে কোনো বৈঠকও করেননি৷

Sagor-runi-2আন্দোলনের শরিক সংগঠন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান জানান, ১১ মার্চের কর্মসূচি বাস্তবায়নে বৃহস্পতি এবং শুক্রবার দুই দফা বৈঠকের সময় দেয়া হলেও সাংবাদিক নেতাদের অধিকাংশই উপস্থিত না হওয়ায় সে বৈঠক হয়নি৷ আবারো বৈঠক ডাকা হয়েছে৷ সেই বৈঠকেই হয়তো সিদ্ধান্ত হবে গণমাধ্যমে ধর্মঘট নিয়ে৷ তবে তিনি নিশ্চিত করে বলতে পারেননি কর্মসূচি পালন হবে কি না৷

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি শাহেদ চৌধুরী জানান, কর্মসূচি এখনো প্রত্যাহার, স্থগিত বা পরিবর্তন করা হয়নি৷ সাংবাদিক নেতাদের বৈঠকের পরই সিদ্ধান্ত জানা যাবে৷

আর বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের সভাপতি ইকবাল সোবহান চৌধুরী জানিয়েছেন শনিবার দুপুরের পর তারা আন্দোলনে জড়িত সাংবাদিক সংগঠনগুলোর বৈঠক ডেকেছেন৷ দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করেই তারা সিদ্ধান্ত নেবেন৷

অন্যদিকে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের আরেক অংশের সভাপতি রুহুল আমীন গাজি জানিয়েছেন, তারা বৈঠক ডেকেছেন রোববার৷ তারা চান সাংবাদিকদের ঐক্য থাকুক এবং ১১ মার্চের কর্মসূচি বাস্তবায়ন হোক৷ তবে বৈঠকের আগে নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না৷

জানা গেছে সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ডের পর সাংবাদিকরা যে ঐক্য প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আন্দোলনকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন, তা এখন নড়বড়ে হয়ে পড়েছে৷ শাহবাগ গণজাগরণ নিয়ে সাংবাদিকরা দু’ভাগে ভাগ হয়ে পড়েছেন৷ তার প্রভাব এই আন্দোলনেও পড়তে পারে৷ আর সাংবাদিকরা রাজনৈতিক মতাদর্শ অনুযায়ী অনেক আগে থেকেই বিভক্ত৷ এ কারণেই ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন দুটি, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনয়িনও দুটি৷

গত বছরের ১১ ফেব্রুয়ারি ভোর রাতে সাগর-রুনি ঢাকায় তাদের নিজ বাসায় দুর্বৃত্তদের হাতে নিহত হন৷ এখনো এই হত্যাকাণ্ডের তদন্তে উল্লেখযোগ্য কোনো অগ্রগতি হয়নি৷ ধরা পাড়েনি মূল অপরাধী। রুনির ভাই নওশের রোমান জানান সাংবাদিকরা এতদিন যে আন্দোলন করেছেন তার জন্য তারা কৃতজ্ঞ৷ তাদের আশা অপরাধীদের গ্রেফতারের দাবিতে তাদের এই আন্দোলন অব্যাহত থাকবে৷ সূত্র: ডিডব্লিউ

সূত্র: নতুন বার্তা

সর্বশেষ