মাহফুজ উল্লাহকে হাজিরের নির্দেশ

মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ২৪, ২০১৩

:: প্রেসবার্তাডটকম ডেস্ক ::

international court(২৪ ডিসেম্বর ২০১৩)- সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহকে আজ মঙ্গলবার দুপুর ২টার মধ্যে ট্রাইব্যুনালে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল-১।

একইসঙ্গে বলা হয়েছে, দুপুর ২টার মধ্যে ট্রাইব্যুনালে হাজির না হলে তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হবে।

মঙ্গলবার ট্রাইব্যুনাল-১-এর চেয়ারম্যান বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীরের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এ আদেশ দেন।

সকালে আদালতের কার্যক্রম যখন শুরু হয় তখন সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ আদালতে উপস্থিত ছিলেন না। এ সময় মাহফুজ উল্লাহকে দ্রুত ট্রাইব্যুনালে হাজির করতে তার আইনজীবীকে নির্দেশ দেন আদালত।

আদালত বলেন, আপনার ক্লায়েন্টকে দুপুরের মধ্যে ট্রাইব্যুনালে আসতে বলেন নইলে আমরা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করবো। এ সময় ট্রাইব্যুনালে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীসহ চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন।

গত ২৬ সেপ্টেম্বর গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী ও সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহকে তলব করেন ট্রাইব্যুনাল। এরপর গত ৬ নভেম্বর চ্যানেল২৪ এর বিরুদ্ধে আনীত আদালত অবমাননার জবাব দাখিল করেছেন তাদের আইনজীবী আসাদুজ্জামান।

এ ছাড়া গত ১০ অক্টোবর ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী ট্রাইব্যুনালে তার লিখিত জবাব দাখিল করেন এবং তিনি নিজে শুনানি করতে আবেদন করেন।

গত ২৪ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার ট্রাইব্যুনালের রেজিস্টারের কার্যালয় বরাবর প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে বেসরকারি চ্যানেল টোয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষসহ আটজনকে বিবাদী করে অভিযোগ দাখিল করা হয়।

প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম, তুরিন আফরোজ, সুলতান মাহমুদ সীমন, তাপস কান্তি বল, সাবিনা ইয়াসমিন খান মুন্নি ও রেজিয়া সুলতানা চমন এ আবেদন দাখিল করেন।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল আইন ১৯৭৩ এর ১১(৪) ধারা মোতাবেক কেন তাদের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ আনা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারির আবেদন করা হয়।

একই সঙ্গে তাদের অভিযুক্ত করে এক বছরের কারাদণ্ড অথবা জরিমানা করার আবেদন করা হয়।

আবেদনে বাকি বিবাদীরা হলেন, চ্যানেল ২৪ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, নির্বাহী পরিচালক, হেড অব প্রোগ্রাম, মুক্তবাক নামন অনুষ্ঠানের প্রডিউসার এবং ওই অনুষ্ঠানের সঞ্চালক মাহমুদুর রহমান মান্না।

প্রসিকিউশনের অভিযোগে বলা হয়, গত ১৮ সেপ্টেম্বর চ্যানেলে ২৪-এর রাত এগারটার ‘মুক্তবাক’ নামক টকশোতে ট্রাইব্যুনালের বিচার বিষয়ে মন্তব্য করা হয়।

টকশোতে ডা.জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, ‘বিচারপতি শামীম হাসনাইন সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর পক্ষে সাক্ষ্য দিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু কেন তাকে দেওয়া হয়নি। তাহলে কি বিচারের বানী নিভৃতে কাদঁবে না?’

এছাড়া টকশোতে সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর সাফাই সাক্ষীদের নিয়ে মন্তব্য করারও অভিযোগ করেন প্রসিকিউশন।