রবিবার, ২১শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং, ৬ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

সু চি’র সম্মানসূচক নাগরিকত্ব কেড়ে নিয়েছে কানাডা

বুধবার, অক্টোবর ৩, ২০১৮

কানাডা: সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিম জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে সেনাবাহিনীর পরিকল্পিত নৃশংসতা ঠেকাতে ব্যর্থ হওয়ায় কানাডার সম্মানসূচক নাগরিকত্ব হারালেন মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চি। প্রতীকী এই সম্মাননা প্রত্যাহারের ওপর কানাডার পার্লামেন্টে ভোটাভুটির পর গতকাল মঙ্গলবার সরকারিভাবে এই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

এর আগে, গত সপ্তাহে দেশটির পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে প্রস্তাবটি সর্বসম্মতিক্রমে পাস হয়।

২০০৭ সালে কানাডার হাউজ অব কমন্স সু চিকে সম্মানসূচক এই নাগরিকত্ব দেয়। কিন্তু এবার তারা বলছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে বর্মি সেনাবাহিনীর নিপীড়ন বন্ধে ব্যর্থ হওয়ায় তার আন্তর্জাতিক খ্যাতি হুমকির মুখে পড়েছে।

গত সেপ্টেম্বরে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে অপরাধকে ‘গণহত্যা’ হিসেবে চিহ্নিত করে একটি প্রস্তাব পাস করেছেন কানাডার আইনপ্রণেতারা।

মিয়ানমার রোহিঙ্গা সংখ্যালঘুদের ভিনদেশি অনুপ্রবেশকারী হিসেবে মনে করে।

গত বছর তাদের বিরুদ্ধে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নৃশংস অভিযানের পর প্রাণভয়ে অন্তত ৭ লাখ রোহিঙ্গা সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নেয়। বর্তমানে তারা কক্সবাজারের শরণার্থী ক্যাম্পে অবস্থান করছে। প্রত্যাবাসন চুক্তি সত্ত্বেও নিজ দেশে ফিরে যাওয়ার ব্যাপারে এখনও তাদের ভীতি রয়েছে।

তাদের অনেকেই বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড, যৌন নির্যাতন এবং অগ্নিসংযোগের শিকার হওয়ার লোমহর্ষক বর্ণনা দিয়েছেন।

সু চি’র নাগরিকত্ব প্রত্যাহার করে নিলেও, নেলসন ম্যান্ডেলা, দালাই লামা ও মালালা ইউসুফজাইসহ আরও পাঁচ ব্যক্তির সম্মানসূচক নাগরিকত্ব বহাল থাকার কথা জানিয়েছে কানাডা।

সর্বশেষ