চিহ্ন হারাচ্ছে সাগর-রুনির কবর!

শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৩

:: প্রেসবার্তাডটকম ডেস্ক ::

s(২০ সেপ্টেম্বর ২০১৩)- সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনির কবর সংরক্ষণের কোনো উদ্যোগ নেয়নি ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। অন্য সাধারণ কবরের মতো নিশ্চিহ্ন করে দেওয়া হচ্ছে সাগর-রুনির কবরও। আর এভাবেই সাংবাদিক দম্পতির সবশেষ স্মৃতিটুকুও হারিয়ে যাবে চিরতরে। তাদের প্রিয় সন্তান মেঘ আর ছুঁয়ে দেখতে পারবে না তার বাবা-মায়ের কবরের মাটি।

সিটি করপোরেশনের নিয়মিত কাজের অংশ হিসেবে রাজধানীর আজিমপুর কবরস্থান লেভেলের কাজ শুরু হবে শনিবার থেকে। এখানেই শায়িত সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি। সিটি করপোরেশন প্রতিবছর একবার কবরস্থানের অরক্ষিত কবরগুলো ভেঙে লেভেল করে। তারই ধারাবাহিকতায় এবারও কবর লেভেল করা হচ্ছে বলে জানা গেছে সিটি করপোরেশন সূত্রে।

নতুন কবরের জায়গা সংকটের কারণে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানান সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তারা।

সাংবাদিক দম্পতির কবর সংরক্ষণের কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে কিনা জানতে চাইলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রশাসক মোহাম্মদ নজমুল ইসলাম বলেন, নতুন আইন অনুযায়ী কবর সংরক্ষণের কোনো ব্যবস্থা নেই। তাছাড়া কোনো কবর সংরক্ষণ করতে হলে সিটি করপোরেশনের কাছে আবেদন করতে হয়।

তিনি বলেন, আবেদনের পর প্রতি বছর কবর প্রতি ৭৫ হাজার টাকা সংরক্ষণ ফি দিতে হয়। সেক্ষেত্রে সাগর-রুনির কবরের জন্য কেউ আবেদন করেছে ও সংরক্ষণ ফি দিয়েছে বলে আমার জানা নেই। তাই অন্য সাধারণ কবরের মতোই এ কবরও ভেঙে লেভেল করা হবে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আনসার আলী খান বলেন, কবরস্থান লেভেল করা সিটি করপোরেশনের রুটিন ওয়ার্ক। যখন নতুন কবরের জায়গা সংকট দেখা যায় তখনই এ উদ্যোগ নেওয়া হয়। আর তারই অংশ হিসেবে এবার কবর লেভেল করা হচ্ছে। তবে সাংবাদিক দম্পতির কবর সংরক্ষণের জন্য কোনো আবেদন পাইনি। তাই এটা সাধারণ কবর হিসেবেই বিবেচিত হবে।

এ ব্যাপারে নিহত সাংবাদিক মেহেরুন রুনির ভাই রোমান বলেন, আমরা বিষয়টা আগে থেকে জানতাম না। রুনির কবরটায় আমার বাবারও কবর। ২০০৮ সাল থেকে এটা আছে। আমরা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। তারা কবরটি কিছু করা হবে না বলে আশ্বস্ত করেছেন।

রুনির ভাইয়ের মতো আমরাও চাই সাগর-রুনির কবরের শেষ স্মৃতিটুকু অন্তত থাক তাদের পরিবার, সন্তানের কাছে।

সূত্র: বাংলানিউজ।