স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি সাংবাদিকদের

সোমবার, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৩

:: প্রেসবার্তাডটকম প্রতিবেদন ::

sagor-runi(১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৩)- সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনির নির্মম হত্যাকাণ্ডের বিচার করতে না পারলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দীন খান আলমগীরকে পদত্যাগের আহ্বান জানিয়েছেন সাংবাদিক নেতারা।

সোমবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তারা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে এ আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে ডিআরইউ’র সভাপতি শাহেদ চৌধুরী বলেন, আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ডের বিচার শুরু করতে হবে। তা না হলে আমরা কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবো।

তিনি বলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দীন খান আলমগীর বার বার আশ্বাস দিয়েও সাগর-রুনির হত্যাকারীদের ধরতে পারেননি। তিনি যদি এ হত্যাকাণ্ডের বিচার করতে না পারেন, তাহলে পদত্যাগ করুন।

শাহেদ চৌধুরী বলেন, প্রত্যেক সাংবাদিককে নিজের স্বার্থে সাগর-রুনি বিচারের দাবিতে সোচ্চার থাকতে হবে। মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত এ বিচারের দাবিতে আন্দোলন করে যেতে হবে। আমরা এই অমানবিক হত্যাকাণ্ডের বিচার না পাওয়া পর্যন্ত আন্দোলন করে যাবো।

ফিতা কেটে ডিআরইউ’র নতুন মিলনায়তনটির উদ্বোধন করেন নিহত সাংবাদিক সাগর সরওয়ারের মা সালেহা মনির ও মেহেরুন রুনির মা নুরন নাহার মির্জা।

সালেহা মনির বলেন, “সাংবাদিকদের জীবন যে এত ঠুনকো, তা আগে বুঝিনি। বুঝলে সাগর-রুনিকে আমরা এ পেশায় থাকতে দিতাম না। তাদের কী অপরাধ? এখনো তাদের হত্যার বিচার হচ্ছে না কেন। এ বিচার হতে বাধা কোথায়?”

কান্নাজড়িত কন্ঠে তিনি বলেন, “সাগর-রুনি বিচারের আন্দোলন বেগবান হচ্ছে না। এ হত্যার বিচার দাবিতে আমি সব সাংবাদিককে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। মৃত্যুর আগে এ খুনের বিচার দেখে যেতে চাই।”

মেহেরুন রুনির মা নুরুন নাহার মির্জা বলেন, “আপনারা মেঘের দিকে তাকান। সে বাবা-মা’র জন্য মাঝে মাঝে কাঁদে। তার দিকে তাকিয়ে হলেও সাগর-রুনি হত্যার বিচার করা হোক।” একথা বলেও কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি।

ডিআরইউ’র সাধারণ সম্পদাক ইলিয়াস খান বলেন, “অব্যাহত আন্দোলনের অংশ হিসেবেই ডিআরইউ সাগর-রুনি মিলনায়তনের নামকরণ করা হয়েছে। সাংবাদিক ইউনিয়নের বিভক্তির কারণে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন না হলেও ডিআরইউ’র উদ্যোগে এ আন্দোলন বেগবান হবে।”

অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ডিআরইউ’র কার্যিনির্বাহী কমিটির সহ-সভাপতি জিয়াউল কবির সুমন, সিনিয়র সাংবাদিক শামীম জামান প্রমুখ।