নিউ মিডিয়া, মানুষের কথা বলে

সোমবার, ০১/০৭/২০১৩ @ ১১:৪৪ পূর্বাহ্ণ

সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা ::

online journalismপত্রিকা পড়ার অভ্যাস আমাদের এখনো আছে। কিন্তু নাগরিক জীবনের একটি দিনও কী চলে ইনফরমেশন সুপার হাইওয়েতে পা না রেখে? দিনের শুরুটা যেমনই হোক, কাজের মাঝেই অনলাইন পত্রিকা বা গণমাধ্যমে চোখ রাখা এখন অতি স্বাভাবিক একটি বিষয়। দিনের বড় সময় এখন চোখ থাকে অনলাইন নিউজপোর্টাল বা পত্রিকাগুলোর অনলাইন সাইটে।

এমনকি যে মানুষগুলোর কাজ খবর নিয়ে সেই সাংবাদিকদেরও বড় নির্ভরতা এসব সাইট।

বাংলাদেশের দিকে তাকালে দেখি পত্রিকাগুলোর অনলাইন পাঠক প্রচলিত সারকুলেশন পাঠকের চেয়ে অনেকগুণ বেশি। পশ্চিমা বিশ্বে ইনটারনেটের ব্যাপক বিস্তারে বেশ কিছু জনপ্রিয় ও ঐতিহ্যবাহী পত্রিকার প্রিন্ট সংস্করণ বন্ধ হয়ে গেছে। তথ্য আজ শুধু কিছু নির্দিষ্ট সংখ্যক মানুষের সম্পদ নয়।

অনলাইনের জনপ্রিয়তায় এমন একটি সময় আসবে যখন ম্যাস মিডিয়া আর ক্লাস মিডিয়া থাকবে না, হয়ে উঠবে সত্যিকারের গণমাধ্যম।

অনলাইন মাধ্যম মানে সব খবর কতটা আগে মানুষকে দেওয়া যায় তার প্রচেষ্টা। নতুন ধারার এই সাংবাদিকতা অনেক বেশি প্রযুক্তি নির্ভর। প্রযুক্তি আর মানুষের চাওয়া বদলে দিচ্ছে সাংবাদিকতার ধরন।

আজ যা ঘটলো, তার জন্য পরদিন পর্যন্ত আর অপেক্ষা নয়। মানুষ খবর চায় এখনই। টেলিভিশন আর রেডিও আসার পর পত্রিকা ধাক্কাটা সামলেছিলো সম্পাদকীয় আর বিশ্লেষণী দক্ষতার জোরে। কিন্তু নিউ মিডিয়া দ্রুততার সঙ্গে তথ্যই দিচ্ছে না, সমাজের নানা স্তর থেকে নিয়ে আসছে বহুমূখী বিশ্লেষণ।
এই যে বদলে যাওয়া সেটা কি শুধু সাংবাদিকদের বদলে যাওয়া? মানুষের তথ্য চাওয়ার ধরন বদলে যাওয়া? না তা শুধু নয়। বদলে গেছে সমাজের তথ্য চাহিদার ধরন।

একটি দেশের সামাজিক, রাজনৈতিক আর অর্থনেতিক ব্যবস্থ‍াপনা অনেকাংশে পরিচালিত করে গণমাধ্যমকে। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাপনা যেখানে মজবুত, স্বভাবতই সাংবাদিকতা সেখানে অনেক স্বাধীন।

নিউ মিডিয়ার কথা এভাবে বললে হয়তো ভুল বলা হবে। সাংবাদিকতা বদলেছে বারবারই। সবসময়ই তা এক অবস্থা থেকে আরেক অবস্থায় উন্নীত হয়েছে। আর প্রচলিত মিডিয়ার চেয়ে নিউ মিডিয়ায় মানুষের অংশীদারিত্ব অনেক বেশি।

মার্কিন বাজার গবেষণা সংস্থা নেলসন এক গবেষণায় বলছে, বিশ্বব্যাপী অনলাইন মিডিয়ার আগামী দিনগুলো অনেক উজ্জ্বল।

“Online will once again outperform all other media in terms of growth,” বলছেন নেলসন।

গত ১০ জুন World Press Trends survey of the World Association of Newspapers and News Publishers এর এক রিপোর্টে বলা হয়, পশ্চিমা বিশ্বে প্রিন্ট মাধ্যমের প্রচার কমেছে, তবে এশীয় অঞ্চলে বেড়েছে।

বলা হয়, বিশ্বে প্রাপ্তবয়স্ক জনসংখ্যার প্রত্যেকে একটি সংবাদপত্র পড়ে। এর মধ্যে ২.৫ বিলিয়ন মুদ্রণ মাধ্যমে, ৬০০ মিলিয়ন পড়ে ডিজিটাল ফর্ম-এ। যুক্তরাষ্ট্রে ৮০ ভাগ ক্লাসিফায়েড বিজ্ঞাপন হয় ডিজিটাল ফর্ম-এ।

একটি বিষয় পরিষ্কার যে, উন্নত দেশে অনলাইন পাঠক বাড়লেও, ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের সংখ্যা যেসব অঞ্চলে কম, সেসব অঞ্চলে অনলাইনের প্রসার একটু ধীর গতিতে হচ্ছে।

এই রিপোর্টে বলা হয়েছে, আগামী দিনগুলোতে, মোবাইল ও ট্যাবলেট-এর ব্যবহার যত বাড়বে, আনলাইন মিডিয়ায় মানুষের বিচরণ ততই বাড়বে।

লেখক: পরিচালক (বার্তা), একাত্তর টেলিভিশন
সৌজন্যে- বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

সর্বশেষ