দৈনিক যায়যায়দিনের অষ্টম জন্মদিন

বৃহস্পতিবার, জুন ৬, ২০১৩

প্রেসবার্তাডটকম প্রতিবেদন ::

jajjai din(০৬ জুন ২০১৩)- দৈনিক যায়যায়দিনের অষ্টম জন্মদিন আজ।

অষ্টম বছরের শুরুতে যায়যায়দিন প্রতিবারের মতো পাঠককুলের হাতে তুলে দিচ্ছে মূল পত্রিকার সঙ্গে প্রথম পর্বের ৩২ পৃষ্ঠার একটি বর্ষপূর্তি সংখ্যা। এতে লিখেছেন দেশের প্রখ্যাতনামা লেখক, সাহিত্যিক, সাংবাদিক, সমাজবিজ্ঞানী এবং প্রজ্ঞাবান বুদ্ধিজীবীগণ।

শুরুতে পত্রিকাটি সাপ্তাহিক যায়যায়দিন হিসেবে প্রকাশিত হয়ে আসছিল। উল্লেখ্য যে এটি প্রথম বার দৈনিক হিসেবে ট্যাবলয়েড আকারে প্রকাশিত হয়েছিল ১৯৯৯ সালে। সে সময় তেমন সাড়া না পাওয়ায় দৈনিক হিসেবে প্রকাশ বন্ধ করে দেয়া হয়। এরপর আবার২০০৬ সালের ৬ জুন সাপ্তাহিক যায়যায়দিন দৈনিক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছিল।

শুরুতে সংবাদপত্রটির সম্পাদক ছিলেন শফিক রেহমান। ৮০ দশকের শেষে এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে সাপ্তাহিক পত্রিকাটি দারুন ভূমিকা পালন করে। ফলে এরশাদ সরকার কর্তৃক শফিক রেহমান অবাঞ্ছিত ঘোষিত হন।

যায়যায়দিন বাংলাদেশে ভালবাসা দিবস তথা ভ্যালেন্টাইন’স ডে চালু করতে অগ্রণী ভুমিকা পালন করেছে। যায়যায়দিন পাঠকের কাছ থেকে লেখা নিয়ে বিশেষ সংখ্যা প্রকাশের ধারনা বাংলাদেশে চালু করেছে। বিভিন্ন উপলক্ষে সাধারণ জনগনের লেখা প্রকাশের এ উদ্যোগের ফলে বিভিন্ন অনেক পাঠক লেখকে পরিনত হতে প্রেরণা পেয়েছেন। যায়যায়দিনের বহুল প্রচারিত বাক্য হচ্ছে “পাঠকই যার লেখক, লেখকই যার পাঠক”। বিভিন্ন প্রবাসী পাঠকও যায়যায়দিনে লিখেছেন। ভ্যালেন্টাইন দিবস ছাড়াও বাংলাদেশের সংবাদপত্রগুলির মধ্যে যায়যায়দিনই সর্বপ্রথম নিজস্ব ওয়েবসাইট প্রতিষ্ঠা করেছে। বিভিন্ন জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের জন্য শিল্পী ও কলাকুশলী নির্বাচনে পাঠকের ভোটের ধারনা যায়যায়দিন প্রথম বাংলাদেশে এনেছে।