বন্ধ তিন গণমাধ্যম খুলে দেওয়ার আহ্বান

রবিবার, ২৬/০৫/২০১৩ @ ৮:৪৬ অপরাহ্ণ

প্রেসবার্তাডটকম ডেস্ক ::

DRU(২৬ মে ২০১৩)- বন্ধ তিন গণমাধ্যম খুলে দিয়ে দেশে স্বাধীন সাংবাদিকতার ক্ষেত্র উন্মোচন করার আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ)নেতারা। রবিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির ১৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে বক্তারা এ আহ্বান জানান।

বক্তারা বলেন, এখন সময় এসেছে সাহসী সাংবাদিকতা করার।
ন্যায় নীতি ও আদর্শকে সঙ্গী করে কলম তুলে নেবার এখনই সময় বলে মন্তব্য করেন তারা। সাংবাদিকদেরকে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান নেতারা।
মহাজোট সরকার গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও গণমাধ্যমকর্মীদের অধিকার হনন করছে আখ্যা দিয়ে ডিআরইউ’র সভাপতি শাহেদ চৌধুরি বলেন, ‘দিগন্ত, ইসলামিক টিভি ও আমার দেশ বন্ধ থাকা মানে দেশের সকল গণমাধ্যমকেই শ্বাস রুদ্ধ করে রাখা’।

তিনি তথ্যমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আমার দেশ প্রকাশে কোন বাধা নেই বলা হচ্ছে, কিন্তু তারপরও পত্রিকাটি প্রকাশে সরকারের পক্ষ থেকে বাধা দেওয়া হচ্ছে।’ তিনি বলেন, ‘দিগন্ত ও ইসলামিক টিভি সাময়িক সময়ের জন্য বন্ধ করা হলেও এই সাময়িক সময় আর কত দিনে গড়াবে তা জনগণ জানতে চায়’।

এসময় তিনি সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু বিচারেরও দাবি জানান।
প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে সকাল সাড়ে ১১টায় জাতীয় পতাকা ও নিজস্ব পতাকা উত্তোলন এবং বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করা হয়। এরপর কেক কেটে মিষ্টি মুখ করেন সাংবাদিকরা। পরে ডিআরইউ’র সাধারন সম্পাদক ইলিয়াস খানের নেতৃত্বে সদস্যদের নিয়ে একটি র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি প্রেসক্লাব, নয়া পল্টন ও আশপাশ এলাকা ঘুরে ডিআরইউ’তে এসে শেষ হয়।

ঢাকার বিভিন্ন গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রিপোর্টারদের অধিকার আদায়, পেশাগত উন্নতি আর মর্যাদা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ১৯৯৫ সালের ২৬ মে এই সংগঠন প্রতিষ্ঠা হয়। সংগঠনটির বর্তমান সদস্য সংখ্যা প্রায় ১৩০০।

ডিআরইউ মূল কাজ হলো- কর্মরত রিপোর্টারদের পেশাগত দক্ষতাবৃদ্ধি, প্রতিভা বিকাশ, পেশাগত মানোন্নয়ন, মর্যাদা প্রতিষ্ঠা, স্বার্থ রক্ষা, বস্তুনিষ্ঠ ও সুস্থ সাংবাদিকতার বিকাশে সদস্যদের জন্য কল্যাণমূলক এবং প্রশিক্ষণ কর্মসূচি গ্রহণের পাশাপাশি বাস্তবায়ন করা।

দলীয় রাজনীতির ওপরে উঠে, নৈতিকতা সমুন্নত রেখে রিপোর্টারদের পেশাগত মান ও দক্ষতা বৃদ্ধির অভিষ্ট লক্ষ্য অর্জনে কাজ করছে ডিআরইউ। দেশে সুষ্ঠু সাংবাদিকতার বিকাশে ভূমিকা পালন করছে এই সংগঠন। রিপোর্টারদের মিলনক্ষেত্র, পারস্পরিক মতবিনিময়ের কেন্দ্রস্থল হিসেবে গড়ে উঠেছে এটি। সদস্যদের পেশাগত মানোন্নয়নে সহযোগিতার পাশাপাশি নানামুখী সেবা ও চিত্তবিনোদনমূলক কর্মসূচির আয়োজন করছে ডিআরইউ। সদস্যদের দুপুরের খাবারের জন্য ডিআরইউ একটি ক্যান্টিন পরিচালনা করছে। প্রতিদিন প্রায় ৫০০ রিপোর্টার ভর্তুকিমূল্যে এই ক্যান্টিন থেকে দুপুরের খাবার গ্রহণ করেন।

এছাড়া প্রতিবছর মিডিয়া ক্রিকেট ও ফুটবলসহ বিভিন্ন ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, বাংলা নববর্ষসহ জাতীয় দিবসসমূহে বৃহত্তর পরিসরে অনুষ্ঠান এবং সদস্য ও তাদের পরিবারের অংশগ্রহণে বার্ষিক বনভোজন আয়োজন করা হয়। পাশাপাশি অসুস্থাবস্থায় সদস্যদের চিকিৎসার জন্য অনুদান এবং প্রয়াত সদস্যদের পরিবারকে এককালীন এক লাখ টাকা অনুদান দেয়া হয়।

এজন্য ডিআরইউ একটি কল্যাণ তহবিল পরিচালনা করছে। ১৮ বছরের পথপরিক্রমায় সংগঠনটি এখন জাতীয় পর্যায়ে একটি মর্যাদাসম্পন্ন প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে।

সর্বশেষ