সিরাজুদ্দীন হোসেন

মঙ্গলবার, ২১/০৫/২০১৩ @ ৪:৩২ অপরাহ্ণ

sirajuddinসিরাজুদ্দীন হোসেন একজন বাংলাদেশী বুদ্ধিজীবি যিনি ১৯৭১ সালের ১০ই ডিসেম্বর রাজাকার বাহিনীর হাতে নিহত হন। তিনি ছিলেন বাংলাদেশে অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের জনক।

জন্ম এবং শিক্ষা
সিরাজুদ্দীন হোসেন ১৯২৯ সালের মার্চ মাসে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি মাত্র সাড়ে ৩ বছর বয়সে তিনি তাঁর বাবাকে হারান। তাঁর চাচা মৌলবী মোহাম্মদ ইসহাক তাঁর পরিবারের সাহায্যে এগিয়ে আসলেও পারিবারিক ভুল বোঝাবুঝির কারণে তিনি চাচার কাছ থেকে সরে আসেন। চাচার কাছে থাকাকালীন সময়ে তিনি মুর্শিদাবাদের নবাব বাহাদুর স্কুল, যশোর জেলা স্কুলে পড়াশোনা শুরু করেন। পরে যশোরের ঝিকরগাছার কাছে মিছরিদিয়াড়া গ্রামের এক বিধবার বাড়িতে জায়গির থেকে ঝিকরগাছা স্কুলে পড়াশোনা করতে থাকেন। ঐ পরিবার সিরাজুদ্দীন হোসেনকে নিজের ছেলের মতো স্নেহ করত। পড়াশোনার ফাঁকে ফাঁকে তিনি বৃদ্ধার ছেলেদের চাষাবাদের কাজেও সাহায্য করতেন এবং তাদের জন্য মাঠে ভাত নিয়ে যেতেন। ম্যাট্রিক পরীক্ষা নিকটবর্তী হলে সেই উদারপ্রাণ বৃদ্ধা তাঁর বাড়ির একটি বড় মোরগ বিক্রি করে ফি-এর ঘাটতির টাকার সংস্থান করে দেন। তারপর তিনি ম্যাট্রিক পাশ করেন এবং যশোর মাইকেল মধুসূদন দত্ত কলেজে আইএ-তে ভর্তি হন। আইএ পাশ করার পর সিরাজুদ্দীন হোসেন কলকাতার ইসলামিয়া কলেজে বিএ পড়া শুরু করলেও কলেজ জীবনে বই কেনার মতো আর্থিক স্বচ্ছলতা তাঁর ছিল না। অন্যের বই আর শিক্ষকদের লেকচারের উপর ভিত্তি করে নিজের তৈরি নোটের মাধ্যমে তিনি লেখাপড়া করেন।

কর্মজীবন
১৯৪৭ সালে ছাত্রাবস্থায় তিনি ‘দৈনিক আজাদ’-এ সাংবাদিকতা শুরু করেন এবং পরে তিনি ‘আজাদ’-এর বার্তা সম্পাদক হন। সে সময় এত অল্প বয়সে বার্তা-সম্পাদকের পদে কাজ করার সৌভাগ্য আর কারো হয়নি। ১৯৫২ সালে ছাত্র হত্যার প্রতিবাদ জানিয়ে ব্যানার সংবাদকে মূল শিরোনাম বানানোর কারণে দৈনিক আজাদের সম্পাদক মওলানা আকরাম খাঁ বিনা নোটিসে তাকে চাকরিচ্যুত করেন। এরপর তিনি ঢাকার ইউএসআইএস অফিসে জুনিয়র এডিটর হিসবে কিছুদিন কাজ করেন। ১৯৫৪ সালে তিনি তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া সম্পাদিত ইত্তেফাকের বার্তা সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন। এখানে তিনি পশ্চিম পাকিস্তানি শাসকচক্রের বিরুদ্ধে বিভিন্ন বিষয়ে লেখালেখি করেন। ১৯৫৪ সালে ‘আজাদ’-এর সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক ছিন্ন হওয়ার এক বছর পর তিনি ‘ইত্তেফাক’-এর বার্তা সম্পাদক পদে নিযুক্ত হন। ১৯৬৬ সালে আইয়ুবী দুঃশাসনামলে ইত্তেফাক বন্ধ হয়ে গেলে সিরাজুদ্দীন হোসেন সংবাদ প্রতিষ্ঠান পিপিআই -এর ব্যুরো চীফ হিসেবে কাজ করেন। সিরাজুদ্দীন হোসেন দীর্ঘদিন ইত্তেফাকের বার্তা সম্পাদক থাকার পর ১৯৭০ সালে নির্বাহী সম্পাদক নিযুক্ত হন।

ব্যাক্তিগত জীবন
তাঁর স্ত্রীর নাম নূরজাহান সিরাজী। তাঁদের পুত্ররা হলেন প্রকৌশলী নাসিম রেজা নূর, প্রকৌশলী শাহিদ রেজা নূর, প্রথম আলোর উপ-ফিচার সম্পাদক জাহীদ রেজা নূর, পিএইচডি গবেষক তৌহিদ রেজা নূর, ইত্তেফাকের সহকারী সম্পাদক ও প্রজন্ম ‘৭১’র সভাপতি শাহীন রেজা নূর।

শহীদ সিরাজুদ্দীন হোসেনের আট ছেলে। আর তিনজন হলেন শামীম রেজা নূর, ফাহীম রেজা নূর, সেলিম রেজা নূর। নূরজাহান সিরাজী ২০১২ সালের ২১ ডিসেম্বর মারা যান।

মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকা
সাংবাদিক সিরাজুদ্দিন হোসেন ১৯৭১ সালে ৭ই মার্চের বঙ্গবন্ধুর ভাষণটি বেতারে প্রচারের দাবি জানিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা তোফায়েল আহমেদের নামে ছাপিয়ে দেন ইত্তেফাকে, কারণ তখন কোন নেতাকে টেলিফোনে পাওয়া যাচ্ছিল না। দৃশ্যত সাংবাদিকতার প্রচলিত রীতি লঙ্ঘন করে ইত্তেফাকে তোফায়েল আহমদের নামে উল্লিখিত বিবৃতিটি প্রকাশের ব্যবস্থা না করলে বঙ্গবন্ধৃর ৭ মার্চের ভাষণটি আদৌ রেডিওতে প্রচারিত হতো কিনা সে ব্যাপারে সন্দেহের অবকাশ আছে। ১৯৭১ সালে ইত্তেফাকেই কাজ করেছেন তিনি এবং ‘ইত্তেফাক’-এর পাতায় সম্পাদকীয়, উপ-সম্পাদকীয় লিখেছেন এবং বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করতেন। কোনো জরুরি তথ্য ওপারে পাঠাতে হলে শফিকুল কবিরকেই খবর দিতেন সিরাজুদ্দীন হোসেন যিনি তা আগরতলার কংগ্রেস ভবন পর্যন্ত পৌঁছে দিতেন। তিনি প্রবাসী সরকারের কাছে পূর্ব পাকিস্তানের আমেরিকান কনস্যুলেটের গোপন প্রতিবেদনটি পাঠিয়েছিলেন, যা পরে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে বারবার প্রচারিত হওয়ার মাধ্যমে বাংলাদেশের পক্ষে বিশ্ব জনমত গড়ে উঠতে সাহায্য করে। যুদ্ধের সময় সিরাজুদ্দীন হোসেন ‘ঠগ বাছিতে গাঁ উজাড়’ নামে একটি উপ-সম্পাদকীয় লেখেন যেখানে তিনি স্পষ্ট ভাষায় বলেন, যে দোষে শেখ মুজিবকে দোষী বলা হচ্ছে, পশ্চিমা রাজনীতিকরা সেই একই দোষে দুষ্ট ৷ এ সময় জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশের মুখপাত্র ‘দৈনিক সংগ্রাম’-এ ‘অতএব ঠগ বাছিও না’ নামে একটি উপ সম্পাদকীয় লিখে তাঁকে পরোক্ষভাবে মৃত্যুর হুমকি দেয় ৷ কিন্তু এসব হুমকি তাঁর কলমকে থামিয়ে রাখতে পারেনি। ১৯৭১ সালের ১০ ডিসেম্বর তাঁকে তাঁর শান্তিনগর, চামেলীবাগের ভাড়া বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে যায় পাকিস্তানি বাহিনী ও আলবদর বাহিনীর লোকেরা। তারপর তাঁর আর কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি।

সন্মাননা
২০১০ সালে সিরাজুদ্দীন হোসেনকে মানিক মিয়া স্বর্ণপদক (মরণোত্তর) দেয়া হয়। সিরাজুদ্দীন হোসেন ইন্টারন্যাশনাল প্রেস ইনস্টিটিউট অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনয়ন লাভ করেছিলেন।

প্রকাশিত গ্রন্থ
ছোট থেকে বড়ো
মহীয়সী নারী
ইতিহাস কথা কও

তথ্যসূত্রঃ উইকিপিডিয়া