আমার দেশ প্রকাশে বাধা নেই: তথ্যমন্ত্রী

সোমবার, মে ২০, ২০১৩

প্রেসবার্তাডটকম ডেস্ক ::

enuদৈনিক আমার দেশ প্রকাশে আইনগত কোনো বাধা নেই বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। সোমবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান তিনি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমার দেশ প্রকাশে আইনগত কোনো বাধা নেই। যথাযথ নিয়ম মেনে অন্য কোনো ছাপাখানা থেকে আমার দেশ প্রত্রিকা বের করতে পারবে কর্তৃপক্ষ। এতে সরকার বাধা দেবে না। তবে আইনগত বিষয় ও তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমার দেশের ছাপাখানা খুলে দেয়া হবে না।’

উল্লেখ্য, গত শনিবার আমার দেশের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের মুক্তি ও পত্রিকার ছাপাখানা খুলে দেয়া, দিগন্ত ও ইসলামিক টেলিভিশনের সম্প্রচার চালুর দাবিতে ১৬ জন সম্পাদক যে বিবৃতি দেন তার পরিপ্রেক্ষিতে সরকারের পক্ষ থেকে এ অবস্থান তুলে ধরেন তথ্যমন্ত্রী। বিবৃতিতে মাহমুদুর রহমানের মা ও দৈনিক সংগ্রাম সম্পাদকের বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহারেরও দাবি জানান সম্পাদকরা।

ইনু বলেন, ‘আমার দেশের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ক্ষুণ্ন করে না। আমার দেশের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’

বিভিন্ন সময়ে দেশের স্বার্থ পরিপন্থি প্রসঙ্গ উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমার দেশের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক গণমাধ্যমের স্বাধীনতার অপব্যবহার করেছেন। তিনি তার পত্রিকা ব্যবহার করে দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির চেষ্টা চালিয়েছেন। তিনি মিথ্যাচার ও অনৈতিক কাজ করেছেন, তথ্য বিকৃত করে দেশে দাঙ্গা বাঁধানোর চেষ্টা করেছেন। এজন্য তার বিরুদ্ধে ফৌজদারি আইনে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।’

হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘আমার দেশের ছাপাখানা থেকে হ্যাকিংয়ের যন্ত্রপাতি জব্দ করা হয়েছে। তল্লাশি ও তদন্ত কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমার দেশের ছাপাখানা খুলে দেয়া হবে না। তবে যথাযথ আইন মেনে কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে অন্য কোনো ছাপাখানা থেকে আমার দেশ বের করতে পারবে এতে সরকার বাধা দেবে না।’

তিনি বলেন, ‘কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়ে, যথাযথ পদ্ধতি অনুসরণ না করে দৈনিক সংগ্রামের ছাপাখানা আল-ফালাহ প্রিন্টিং প্রেস থেকে আমার দেশ ছাপানোর কারণে সরকার বাধা দিয়েছে। এজন্য সংগ্রাম কর্তৃপক্ষ তাদের ভুল বুঝতে পেরে দুঃখপ্রকাশ করে আমাদের কাছে চিঠি দিয়েছে।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘মাহমুদুর রহমান তার বৃদ্ধা মাকে নিয়ে অমানবিক ও জালিয়াতি করেছেন। তার মাকে অনৈতিকভাবে আমার দেশের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক করা হয়েছে যা বেআইনি।’

তিনি বলেন, ‘সম্পাদকরা যে বিবৃতি দিয়েছেন তা তারা সব তথ্য না জেনে, না বুঝে দিয়েছেন।’

সম্পাদকদের কাছে সবিনয়ে প্রশ্ন রেখে ইনু সাংবাদিকদের বলেন, ‘আপনারাই বলুন, হ্যাকিংয়ের অপরাধে মাহমুদুর রহমানের বিচার করা অন্যায় কি না। মিথ্যাচার, ধর্মীয় উন্মাদনা সৃষ্টি করে দেশে দাঙ্গা বাঁধানোর চেষ্টা ও তথ্য বিকৃতি করার অপরাধে তার বিচার করা অন্যায় কি না?’

মাহমুদুর রহমান গণমাধ্যমের ইতিহাসে এক কলঙ্কজনক অধ্যায় সৃষ্টি করেছেন বলে মন্তব্য করেন তিনি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ভিন্ন মত, ভিন্ন আদর্শ, সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলা ও সরকারের সমালোচনা করার জন্য মাহমুদুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। বরং তথ্য হ্যাক করা, মিথ্যাচার করা, অনৈতিকভাবে নিজ পত্রিকাকে হীনস্বার্থে ব্যবহার করা, দেশে দাঙ্গা বাঁধানোর চেষ্টা ও আইন অমান্য করার কারণে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

উল্লেখ্য, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের বিচারক বিচারপতি নিজামুল হক নাসিম ও প্রবাসী আইন বিশেষজ্ঞ আহমেদ জিয়াউদ্দিনের স্কাইপে সংলাপ প্রকাশ ও রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে আমার দেশের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে গত ১১ এপ্রিল গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ওই দিনই পত্রিকাটির ছাপাখানায় তালা লাগিয়ে দেয়া হয়।