ক্ষতিকর বিদেশি চ্যানেলগুলো বন্ধ করা হবে

সোমবার, এপ্রিল ২৯, ২০১৩

প্রেসবার্তাডটকম প্রতিবেদন::

enuবিদেশি যেসব চ্যানেল ক্ষতিকর প্রভাব ফেলছে সেসব চ্যানেল বন্ধ করে দেয়া হবে এবং ভারতে বাংলাদেশের চ্যানেলগুলো দেখানোর জন্য আলোচনা চলছে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।
তিনি বলেন, ভারতের তথ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ হয়েছে। তাকে অনুরোধ করা হয়েছে। ব্যবসায়িক জটিলতা নিরাসন করে দ্রুত বাংলাদেশের চ্যানেলগুলো যেন সেখানে প্রদর্শন করা হয়।

সোমবার জাতীয় সংসদে সরকার দলীয় সংসদ সদস্য মোশতাক আহমেদ রুহীর প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব তথ্য জানান।

বেবী মওদুদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, অনলাইন গণমাধ্যম সহায়ক নীতিমালা প্রণয়ন কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। অনলাইন গণমাধ্যম সহায়ক নীতিমালা প্রণয়নের নিমিত্তে সরকার ১৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

এ সংসদের অপর একটি প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, সাংবাদিকদের সার্বিক কল্যাণের বিষয় চিন্তা করে বর্তমান সরকার সাংবাদিক সহায়তা ভাতা বা অনুদান নীতিমালা- ২০১২ প্রণয়ন করেছে। এ নীতিমালার আওতায় তথ্য মন্ত্রণালয় গত বছর অস্বচ্ছল সাংবাদিকদের ৫০ লাখ টাকা আর্থিক সহায়তা দিয়েছে। চলতি অর্থবছরে এ খাতে এক কোটি টাকা বরাদ্দ রয়েছে। বরাদ্দ হতে ইতোমধ্যে ২৫ জন সাংবাদিককে সাড়ে ১৫ লাখ টাকার আর্থিক সহায়তা দেয়া হয়েছে।

সাধনা হালদারের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, সংবাদপত্র, সংবাদ সংস্থা, বেতার ও সরকারি এবং বেসরকারি টিভি চ্যানেলসহ সকল গণমাধ্যমের জন্য একটি সময়োপযোগী নীতিমালা প্রণয়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সংবাদপত্রের জন্য দ্যা প্রিন্টিং প্রেস এন্ড পাবলিকেশনস (ডিক্লারেশন এন্ড রেজিস্ট্রেশন) এ্যাক্ট, ১৯৭৩ অনুসরণ করা হচ্ছে।

মন্ত্রী বলেন, বেসরকারি বেতারসমূহের জন্য বেতার কেন্দ্র স্থাপন ও পরিচালনা নীতিমালা ২০১০ প্রণয়ন করা হয়েছে। বেসরকারি টেলিভিশনের জন্য নীতিমালা প্রণয়ন কার্যক্রম বর্তমানে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। অনলাইন গণমাধ্যম সহায়ক নীতিমালা ২০১২ প্রণয়নের জন্য প্রধান তথ্য কর্তমকর্তাকে আহ্বায়ক করে ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করাহয়েছে। এছাড়া একটি সামগ্রিক সম্প্রচার নীতিমালা প্রণয়নের কাজ চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে।