আমার দেশ বন্ধ করবে না সরকার

বুধবার, এপ্রিল ১৭, ২০১৩

প্রেসবার্তাডটকম ডেস্ক::

amar desh logoতথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, আমার দেশ পত্রিকার ডিক্লারেশন বহাল রয়েছে। এর প্রকাশনা বাতিলের কোনো পরিকল্পনা সরকারের নেই।

মঙ্গলবার বিকেলে সচিবালয়ে তথ্য অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। দৈনিক আমার দেশ প্রত্রিকা এবং এর সম্পাদকের বিষয়ে জনগণের মধ্যে বিভ্রান্তি দূর করার জন্য এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

মন্ত্রী বলেন, ‘তবে আমার দেশ প্রত্রিকা প্রকাশের জন্য এর প্রকাশককে নতুন একটি মুদ্রণালয় বা প্রেস ঠিক করতে হবে এবং বিধি অনুযায়ী ফরম-বি পূরণ করে ঢাকা জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছ থেকে অনুমতি নিতে হবে।’

আমার দেশ পত্রিকার সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘কোনো মানুষ বিচারের ঊর্ধ্বে নয়। শুধু সাংবাদিক হওয়ার কারণে কারো বিরুদ্ধে মামলা করা যাবে না- এমন নজির কোথাও নেই।’

তিনি বলেন, ‘আমার দেশ পত্রিকার সম্পাদক পেশাজীবী সাংবাদিক নন। তিনি বিবেক বর্জিত ও নীতিহীনভাবে সাইবার ক্রাইম করেছেন। তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে ফৌজদারি অপরাধের কারণে। এর সঙ্গে পত্রিকার ডিক্লারেশন বা সংবাদপত্রের স্বাধীনতার সম্পর্ক নেই।’

মাহমুদুর রহমানের মুক্তির জন্য ‘রাজনৈতিক দল ও সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের দাবি না তোলার’ অনুরোধ জানিয়ে ইনু বলেন, ‘একজন অপরাধীকে গ্রেপ্তার করলেই যদি তার মুক্তির দাবিতে আন্দোলন করা হয় তাহলে দেশে কখনো আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হবে না।’

তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, ‘এছাড়া সম্প্রতি (১২ ও ১৩ এপ্রিল) কোনো অনুমতি ছাড়াই দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকার প্রেস ‘আল-ফালাহ প্রিন্টিং প্রেস’ থেকে বে-আইনিভাবে আমার দেশ পত্রিকা মুদ্রণ করা হয়েছে এবং এজন্য মাহমুদুর রহমান আমার দেশ প্রত্রিকার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে তার মায়ের নাম ব্যবহার করেছেন। এক্ষেত্রে তিনি যথাযথ নিয়ম অনুসরণ না করে প্রতারণা ও চতুরতার আশ্রয় নিয়েছেন।’

আমার দেশ ছাড়া অন্য যেসব পত্রিকা ব্লগ বা ফেসবুকের আপত্তিকর মন্তব্য ছেপেছে সেসব পত্রিকার সম্পাদককেও গ্রেপ্তার করা হবে কি না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘এগুলো খতিয়ে দেখা হচ্ছে এবং সরকার বিষয়টি গভীরভাবে চিন্তা করছে।’

মাহমুদুর রহমানের বিষয়টি আদালতে না গিয়ে প্রেস কাউন্সিলে মামলা করা যেত কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সরকার কখনো প্রেস কাউন্সিলে মামলা করে না। আর তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের ৫৬ ও ৫৭ ধারা এবং ১৯৭৩ সালের ছাপাখানা ও প্রকাশনা (ঘোষণা ও নিবন্ধিকরণ) আইনের ৮০ ধারা অনুযায়ী।’

প্রসঙ্গক্রমে তিনি বলেন, ‘তবে কোনো সংবাদ প্রকাশের জন্য কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠী সংক্ষুব্ধ হলে তারা প্রেস কাউন্সিলে মামলা করতে পারেন।’

এর আগে আমার দেশের প্রকাশনা সাময়িক স্থগিত রাখার ঘোষণা দেয় কর্তৃপক্ষ।