সাংবাদিক হত্যায় ২০১৫ সাল

বুধবার, ডিসেম্বর ৩০, ২০১৫

:: প্রেসবার্তাডটকম ডেস্ক ::

Journalist killনানা চড়াই উৎরাইয়ের মধ্য দিয়ে শেষ হতে যাচ্ছে ২০১৫। নানা ঘটনার সাক্ষী হয়ে থাকবে এবছরটা। এ বছর যেমন অনেক ভাল ঘটনা দেখেছে বিশ্ববাসী। তেমনি এমন কিছু ঘটনাও ঘটেছে যা আমাদের মনে দাগ কেটেছে। কেমন গেল এ বছরটা? এমন প্রশ্ন অনেকের মনেই। আর বিভিন্ন দেশে সাংবাদিকদের বন্দী, নির্যাতন ও হত্যার ঘটনা এ বছর বেশ আলোচিত হয়েছে। বিশেষ করে জঙ্গি গোষ্ঠী আইএসের হাতে সাংবাদিক অপহৃত হওয়ার ঘটনা বিশ্ব জুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়েছে।

রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্সের (আরএসএফ) তথ্যের ওপর ভিত্তি করে এবছর সাংবাদিক হত্যার একটি প্রতিবেদন তুলে ধরা হলো। আরএসএফ মঙ্গলবার এক রিপোর্টে জানিয়েছে, ২০১৫ সালে বিভিন্ন দেশে মোট ১শ ১০ জন সাংবাদিককে হত্যা করা হয়েছে। তবে শান্তিপূর্ণ দেশগুলোর আরো বহু সাংবাদিককে হামলার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

দায়িত্বরত অবস্থাতেই ৬৭ সাংবাদিককে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়া আরো ৪৩ জনকে বিভিন্ন সময়ে হত্যা করা হয়েছে। তবে তাদেরকে কিভাবে হত্যা করা হয়েছে সে বিষয়টি এখনও জানা যায়নি বলে জানিয়েছে ওয়াচডগ গ্রুপ।

এছাড়া আরো ২৭ সৌখিন সাংবাদিক এবং গণমাধ্যমের আরো সাত কর্মীকেও হত্যা করা হয়েছে। এই সংখ্যা থেকে সাংবাদিকদের ওপর সহিংসতার ঘটনা খুব সহজেই অনুমান করা যায়। আর এ কারণে জাতিসংঘকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছে ওই রিপোর্টটি।

ওই রিপোর্টটি বিশেষভাবে দেখিয়েছে কিভাবে সাংবাদিকদের বিভিন্ন জঙ্গি গোষ্ঠী হত্যা করছে। বিশেষ করে ইসলামিক স্টেট এ বছর বেশ কয়েকজন সাংবাদিককে অপহরণ করে হত্যা করেছে। সম্প্রতি আইএসের কাছ থেকে মুক্তি পেয়েছেন ফ্রেঞ্চ সাংবাদিক নিকোলাস হেনিন। মুক্তির পর তিনি জানিয়েছেন, আইএসের কথিত জিহাদি জনসহ বেশ কয়েকজন তার ওপর অমানবিক নির্যাতন চালিয়েছে। তাকে প্রতিনিয়ত শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতন করা হতো বলেও জানিয়েছেন তিনি।

ওয়াচডগের রিপোর্ট অনুযায়ী ২০১৪ সালে দুই তৃতীয়াংশ সাংবাদিক বিভিন্ন যুদ্ধ ক্ষেত্রে নিহত হয়েছেন। তবে ২০১৫ সালে ঠিক ভিন্ন চিত্রটাই দেখা গেছে। এবছর সহিংসতা বা যুদ্ধক্ষেত্রে নয় বরং দেশে শান্তিপূর্ণ অবস্থার মধ্যেও দুই তৃতীয়াংশ সাংবাদিককে হত্যা করা হয়েছে।

তবে এ বছর সিরিয়া এবং ইরাক সাংবাদিকদের জন্য বিপজ্জনক এলাকা ছিল। কেননা এসব এলাকাতেই ১০ বা ১১ সাংবাদিককে হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে আরএসএফ।

এবছর ফ্রান্সের শার্লি এবদো ম্যাগাজিনেরই আট সাংবাদিককে হত্যা করা হয়েছিল। এটা খুবই অপ্রত্যাশিত ছিল। পশ্চিমা কোনো দেশ এধরনের পরিস্থিতির মুখোমুখি এর আগে হয়নি। ওই ম্যাগাজিনের অনেক সাংবাদিক এবং কর্মীরা বর্তমানে আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে। এছাড়া এদের মধ্যে অনেকেই নিজেদের আবাসস্থল পরিবর্তন করে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে।

অপরদিকে সিরিয়ায় বহু সাংবাদিককে অপহরণের পর শিরশ্ছেদ করে হত্যা করা হয়েছে। এদের মধ্যে এক জাপানিজ ফ্রিল্যান্সরিপোর্টার কেনজি গোটোকে হত্যা করে তার ভিডিও প্রকাশ করেছিল আইএস।

আরএসএফের রিপোর্ট অনুযায়ী ভারতে এ বছর নয় সাংবাদিককে হত্যা করা হয়েছে। এদের অধিকাংশই রাজনৈতিক এবং অপরাধমূলক খবর প্রচার করত। আর এই আক্রোশ থেকেই তাদের হত্যা করা হয়েছে বলে বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে।

এবছর বাংলাদেশে মুক্তমনা চার ধর্মনিরপেক্ষ ব্লগারকে হত্যা করেছে স্থানীয় কথিত জঙ্গিরা।

ওই রিপোর্টে আরো বলা এ বছরের শেষের দিকে ৫৪ সাংবাদিককে জিম্মি করে রাখা হয়েছিল। এদের মধ্যে ২৬ জনই সিরিয়ায় জিম্মি অবস্থায় রয়েছে। অপরদিকে বিভিন্ন দেশে প্রায় ১শ ৫৩ সাংবাদিককে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। এদের মধ্যে ২৩ জন চীনে এবং ২২ জন মিশরের কারাগারে বন্দী রয়েছে।

সূত্র- বাংলামেইল