ভোরের পাতা’র রাঙামাটি প্রতিনিধির পদত্যাগ

রবিবার, নভেম্বর ১, ২০১৫

:: প্রেসবার্তাডটকম প্রতিবেদন ::

vorer pataসম্মানি না দেওয়া ও বিজ্ঞাপনের জন্য চাপ দেওয়ার ক্ষুব্দ হয়ে পদত্যাগ করেছেন ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক ভোরের পাতা’র রাঙামাটি জেলা প্রতিনিধি ইয়াছিন রানা সোহেল। পত্রিকাটির নীতি মেনে নিতে না পেরে তিনি এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

শনিবার সন্ধ্যায় সম্পাদক বরাবর দেয়া তার পদত্যাগপত্রটির মূল অংশ পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হল।।

আমি নিম্নস্বাক্ষরকারী ইয়াছিন রানা সোহেল রাঙামাটি জেলা শহরের একজন স্থায়ী বাসিন্দা হই। বিগত একযুগেরও অধিক সময় ধরে পড়ালেখার পাশাপাশি সাংবাদিকতা পেশায় যুক্ত রয়েছি। গত দেড় বছরের অধিক সময় ধরে আপনার পত্রিকায় কাজ করে আসছি। সে হিসেবে পাঁচমাস আগে আমাকে নিয়োগপত্র এবং আইডি কার্ড পাঠানো হয়েছিল।

নিয়োগপত্র পড়ে প্রথমে বুঝতেই কষ্ট হয়েছে, আমাকে কি সংবাদদাতা নাকি বিজ্ঞাপন প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

শখের বশেই লিখকে লিখতে সাংবাদিক হওয়া আমার। বর্তমানে একটি স্থানীয় পত্রিকা দৈনিক পার্বত্য চট্টগ্রাম ও অনলাইন দৈনিক পাহাড়২৪.কম’র বার্তা সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। এছাড়াও বেসরকারি একটি টিভি চ্যানেলের জেলা প্রতিনিধির দায়িত্বও পালন করছি বেশ কয়েকবছর যাবৎ।

আপনার পত্রিকায় নিয়োগ প্রদানের পর থেকেই শুধুই বিজ্ঞাপনের জন্য চাপ দেয়া হয়ে থাকে। কোনো প্রকার সম্মানিতো আপনার প্রতিষ্ঠান থেকে অদ্যবধি দেয়া কিংবা দেয়ার প্রতিশ্রুতিও দেয়া হয়নি। অথচ অষ্টম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়ন করেছেন বলেও প্রচারনা দেখেছি। যা জেলা প্রতিনিধিদের কেউ পেয়েছে বলে আমার মনে হয়না।

এমনকি রাঙামাটিতে ভোরের পাতা এনেছি নিজের পকেটের টাকা খরচ করে। এছাড়াও দশ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান করেছি নিজের পকেটের টাকা খরচ করে। সেই বিলও অদ্যবধি পাইনি। আর পত্রিকার আইডি কার্ড কিংবা সাংবাদিকতা নামটি ব্যবহার করে চাঁদাবাজি কিংবা ধান্ধাবাজি করাও আমার পক্ষে সম্ভব নয়।

পত্রিকা মানুষের হাতে পৌঁছানোর চেয়ে আপনারা বিজ্ঞাপনটাকেই গুরুত্ব দিচ্ছেন বেশি। ফলে আপনার এই পত্রিকায় কাজ করার মতো আগ্রহ কিংবা ইচ্ছা আমার নেই।

তাই অদ্য দিন থেকে আমি রাঙামাটি জেলা প্রতিনিধি হতে স্বেচ্ছায়, স্বজ্ঞানে পদত্যাগ করলাম।

ইয়াছিন রানা সোহেল
সদর, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা