বিবেকের দংশনে দংশিত না হয়ে পারিনা!

Thursday, 08/01/2015 @ 7:34 pm

:: আকাশ মো. জসিম ::

newsmediaআমরা সাংবাদিকেরা সবাই নাকি দালাল হয়ে গেছি। সঠিক খবর নাকি কোন সাংবাদিকই লিখছে না। এমনই এক বিরুপ মন্তব্য করছেন জেলার কতেক সংবাদপত্র পাঠক ও সচেতন নাগরিক। আসলে তাঁরা এমনটিই ভাববেন বলে আমিও ভাবি। অবশ্য এটাও ঠিক, কোন এক অদৃশ্য ভীতির অন্তরালে খবর লিখতে হয় বলে আমরা সবাই কমবেশি দালাল হয়ে গেছি।

তবে এ দালালির পেছনে রয়েছে মূল দালালদের দৌরাত্মতা। এসব বিষয় হয়তো আমাদের ওই সব পাঠকদের না জানা কিংবা না বুঝারই কথা। কেননা নিজের পকেটের টাকায় পত্রিকা কিনে আসল খবরটা না পেলে স্বাভাবিকভাবে সবাই এসব কথা বলবে!

সচেতন নাগরিকদের সাথে আমিও একমত না হয়ে পারছি না! নোয়াখালীর রাজনৈতিক আঙ্গিনায় পাঠকদের সাথে আমিও যখন দেখি প্রতিদিন জেলার কোথাও না কোথাও পুলিশের গুলিতে আহত বা নিহত হচ্ছেন নিরীহ কোন এক ব্যবসায়ী কিংবা রাজনৈতিক কর্মী। বিপরীতে পরের দিনের পত্রিকার পাতায় যখন লেখা হয় বিএনপির তান্ডব, নিহত–। তখন একজন দায়িত্বশীল নাগরিকের এমন মন্তব্য সহজ, সত্য ও স্বাভাবিক।

প্রসঙ্গক্রমে, ৮জানুয়ারি, ২০১৫ দৈনিক সমকালের পাতায় লিখা হয়েছে “নোয়াখালীতে বিএনপি জোটের তান্ডব ২ যুবদল কর্মী নিহত ”তখন আমি ভাবি আসলে তান্ডব তো এ মূহুর্তে হয়তো ওই পত্রিকার প্রতিনিধি নয়তো সম্পাদকই সৃষ্টি করছেন। কারণ জোটের তান্ডব হলে জোটের লোক গুলিতে প্রাণ হারানোর কোন সঙ্গত কারণ থাকতে পারেনা। এটা কিছু দৈব ঘটনা ছাড়া নিত্য কোন ঘটনার ধারাবাহিকতায় হওয়ারও কথা না। তখন, পাঠকদের সবিনয়ে জানাতে হয়, প্রিয় পাঠক, পত্রিকাটির সম্পাদকের নীতি-আদর্শ দলীয় ভিত্তিক হওয়ায় তাঁর কাছে এর চেয়ে সত্য, বস্তনিষ্ঠ ও প্রতিশ্রুতিশীল খবর পাওয়ার আশা করাটা বোকামী নয় কি!

পেশাগত জীবনের এ পর্যায়ের অভিজ্ঞতায় মনে করি যে, পত্রিকার মালিক বা সম্পাদক যে মতাদর্শ নিয়ে চলেন সে পত্রিকা যেভাবে হোক, যে বাক্যে হোক, কিংবা ইনিয়ে বিনিয়ে হলেও নিজ দলের আদর্শ ধারণ করবেই। বলি, একদিকে জনকন্ঠ, সমকাল অন্যদিকে দিনকাল কিংবা সংগ্রাম। এ কারণে সমকাল মানে আওয়ামী লীগের দলিল মনে করা একটি সত্য, সহজ ও সুন্দর এবং সঞ্জীবিত ধারনা।

বিষয়টি এ কারণে বলি যে, আসলে বিএনপি জোটের ডাকা হরতাল, অবরোধ মিছিলে পুলিশী বাঁধা (তান্ডব) সৃষ্টি না হলে কোন বিপরীত ক্রিয়া হয় বা হয়েছে বলে আমি মনে করিনা।

এ লেখাটির প্রকাশের পর অনেকে হয়তো মনে করবেন আসলে আমিও মতান্তরে বিএনপির দালালি করছি। তাতে অবশ্য, আমার আপত্তি থাকেনা। কারণ, আমার জানা মতে, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকাকালে তাদের সভা, সমাবেশে পুলিশী বাঁধার প্রতিবাদে নাগরিক ভাবনা সূত্র ধরে হলেও বরাবরই সংঘটিত খবর প্রকাশ করে নিজেকে একজন বস্তনিষ্ঠ সংবাদকর্মীর পরিচয় রেখেছি। অবশ্য, যুগ যুগ ধরে কিছু আজন্ম দালাল তখনকার মতোও ছিল।

তবে, বাস্তব সত্য হলো জাতীয় পর্যায়ে প্রকাশিত বেশিরভাগ সংবাদমাধ্যমই কোথাও দালালি, কোথাও সুবিধাভোগী আবার কোথাও নীতিচ্যুতি হয়ে পড়ায় আমরা জেলা পর্যায়ের সংবাদকর্মীরাও দিক ভ্রান্ত। আমাদেরকে প্রতিনিধিত্ব পদ রক্ষার স্বার্থে পত্রিকার সম্পাদক কিংবা মালিকের আদর্শ মাফিকই খবর পাঠাতে হয়। অবশ্য, প্রেরিত খবরের কারণে বিবেকের দংশনে দংশিত না হয়ে পারিনা!

লেখক: আকাশ মো: জসিম, সম্পাদক, দৈনিক দিশারী, নোয়াখালী।