অষ্টম মজুরি বোর্ডের সুপারিশ অনুমোদন করেনি মন্ত্রিসভা

Monday, 05/08/2013 @ 3:43 pm

:: প্রেসবার্তাডটকম ডেস্ক ::

jurnalist pro(৫ আগস্ট ২০১৩)- সংবাদপত্র ও বার্তা সংস্থাগুলোর কর্মীদের বেতন বৃদ্ধির বিষয়ে একমত হলেও অষ্টম মজুরি বোর্ডের সুপারিশ অনুমোদন করেনি মন্ত্রিসভা।

ওই সুপারিশের বিষয়ে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করে তা বাস্তবায়নের জন্য সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে ছয় সদস্যের একটি মন্ত্রিসভা কমিটি করে দেয়া হয়েছে।

ওই কমিটি এক মাসের মধ্যে প্রতিবেদন দিলে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন সাপেক্ষে তা বাস্তবায়ন করা হবে বলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব খন্দকার মো. ইফতেখার হায়দার জানান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে তার কার্যালয়ে সোমবার মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠক হয়। পরে অতিরিক্ত সচিব সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বিস্তারিত জানান।

তথ্য মন্ত্রণালয় গঠিত অষ্টম মজুরি বোর্ডের চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি ও প্রেস কাউন্সিলের সাবেক চেয়ারম্যান বিচারপতি কাজী এবাদুল হক গত ৩০ জুন মন্ত্রণালয়ে তাদের সুপারিশ জমা দেন।

ওই সুপারিশে সংবাদপত্র ও সংবাদ সংস্থার কর্মীদের মূল বেতন আগের তুলনায় গড়ে ৭০ শতাংশ বৃদ্ধি এবং মূল বেতনের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে অন্যান্য সুবিধা দেয়ার প্রস্তাব করা হয়।

ইফতেখার হায়দার জানান, মজুরি বোর্ডের ওই সুপারিশ মন্ত্রিসভার বৈঠকে উপস্থাপনের পর সদস্যরা এরসঙ্গে একমত পোষণ করেন।

“সুপারিশ বাস্তবায়নে সংস্কৃতি-বিষয়ক মন্ত্রীর নেতৃত্বে ছয় সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে এক মাসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।”

তথ্য, স্বরাষ্ট্র, যোগাযোগ, পরিবেশ এবং গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রিদেরও ওই কমিটিতে রাখা হয়েছে বলে অতিরিক্ত সচিব জানান।

তিনি জানান, মজুরি বোর্ডের সুপারিশে রাজধানীর সংবাদপত্রের সম্পাদক ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের সর্বোচ্চ বেতন ধরা হয়েছে ৩৪ হাজার ৮৫০ টাকা থেকে ৫৫ হাজার ৮৫০ টাকা।আর সর্বনিম্ন বেতন ধরা হয়েছে তিন হাজার ৭০০ টাকা থেকে পাঁচ হাজার ৬১৫ টাকা।

সংবাদপত্র ও বার্তা সংস্থাগুলোর কর্মীদের জন্য নতুন বেতন কাঠামো নির্ধারণে গত বছর ১৮ জুন এই ওয়েজ বোর্ড গঠন করে সরকার। এরপর অক্টোবরে আসে ৫০ শতাংশ মহার্ঘ্যভাতার ঘোষণা, যা ২০১২ সালের ১ জুলাই থেকে কার্যকর করতে বলা হয়।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ১৮ জুন সংবাদপত্র ও সংবাদ সংস্থায় কর্মরত সব সাংবাদিক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীর জন্য অষ্টম ওয়েজবোর্ড গঠন করে সরকার। ১৩ সদস্য বিশিষ্ট এ কমিটির প্রধান করা হয় বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের সাবেক চেয়ারম্যান বিচারপতি কাজী এবাদুল হককে।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব নাজমুল হোসেন খানকে অষ্টম ওয়েজবোর্ডের সচিবের দায়িত্ব দিয়ে ৬ মাসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়। পরে আরো দুই দফায় এ সময় বাড়ানো হয়।

কমিটির অপর সদস্যরা হলেন- ডেইলি স্টারের সম্পাদক মাহফুজ আনাম, প্রথম আলোর সম্পাদক মতিউর রহমান, দৈনিক আজাদীর সম্পাদক এমএ মালেক, রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা বাসস- এর প্রধান সম্পাদক এহসানুল করিম, ইউএনবির প্রধান সম্পাদক এনায়েতুল্লাহ খান, দৈনিক মানবজমিনের প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক মতিউর রহমান চৌধুরী, সাংবাদিক ইকবাল সোবহান চৌধুরী ও রুহুল আমিন গাজী, বাংলাদেশ সংবাদপত্র কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি এম মতিউর রহমান তালুকদার, সাধারণ সম্পাদক এম খায়রুল ইসলাম, সংবাদপত্র প্রেস কর্মচারী সংগঠনের সভাপতি এম আলমগীর হোসেন খান ও সাধারণ সম্পাদক কামাল উদ্দিন।

সর্বশেষ