সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতায় ফরিদগঞ্জ

Friday, 28/07/2017 @ 11:26 pm

:: কামরুজ্জামান ::

কোন একটা ঘটনা বা বিষয়কে সুন্দর সাবলীল, সহজ ও পাঠকের বোধগম্য হয় এমন করে উপস্থাপনের নাম সংবাদ। যিনি এটি প্রেরণ করেন, পরিবেশন করেন বা উপস্থাপন করেন তিনিই সাংবাদিক। ব্যক্তি জীবনে প্রত্যেকেই কোন না কোনভাবে সাংবাদিক। কোন একটি সংবাদ পত্রিকায় ছাপা হলে, টেলিভিশনে পরিবেশন হলে পাঠক বা শ্রোতাগণ এটি আরো বহুজনের কাছে প্রচার করে বেড়ান। পার্থক্য এতটুকু যে, পাঠক বা শ্রোতা হয়ত পেশাদার সাংবাদিকদের মত সুন্দরভাবে গুছিয়ে উপস্থাপন করতে পারেন না।

সাংবাদিকতা একটি চ্যালেঞ্জিং ও ঝুঁকিপূর্ণ পেশা হলেও অনেকের কাছেই নেশার মতো। যারা এ পেশাকে নেশার মতো গ্রহণ করেছেন তারাই আন্তরিকতা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে এ পেশায় বেশ সুনাম যশ খ্যাতি অর্জন করেছেন। বহু সাংবাদিক প্রশাসন, দুর্বৃত্ত ও রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের হাতে প্রাণ দিয়েছেন। নির্যাতিত হয়েছেন এবং হচ্ছেন প্রতিনিয়ত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে। এ নিয়ে সংবাদকর্মীগণ আন্দোলন সংগ্রাম করেছেন, করছেন। এ বিষয়টি সকলেরই জানা।

বর্তমান সময়ে যুগের বা সময়ের পরিবর্তনে প্রযুক্তির কারণে সংবাদ জানা, বুঝা, শিখা এবং সংবাদ পরিবেশন পর্যন্ত বেশ সহজ হয়ে গেছে। সাংবাদিকতা একটি চ্যালেঞ্জিং পেশা। বর্তমানে প্রচুর মেধাবী ও শিক্ষিত ছেলে-মেয়েরা এ পেশায় প্রতিযোগিতার সাথে কাজ করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করছে। শুধু শহরে কেন, প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছেলেদের সাথে পাল্লা দিয়ে অনেক মেয়েও এ পেশায় কৃতিত্বের উদাহরণ সৃষ্টি করছে।

চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলা একটি ঐতিহ্যবাহী উপজেলা। এখানে শিক্ষিতের হার যেমন বেশী, তেমনি দেশে বিদেশে সরকারী ও বেসরকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে গুরুত্বপূর্ণ বহুপদে প্রচুর লোক অধিষ্ঠিত থেকে আমাদের উপজেলাকে প্রচারণার শীর্ষে নিয়ে গেছেন। সাংবাদিকতার ক্ষেত্রেও কোন ঘাটতি পড়েনি। বর্তমানে জাতীয় প্রেসক্লাবের শীর্ষ পদটি য়িনি দখল করে আছেন তিনিও এ উপজেলারই কৃতি সন্তান।

জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি, সাংবাদিক জগতের দিকপাল মো. শফিকুর রহমান যেমনিভাবে ফরিদগঞ্জের সন্তান হয়ে গর্ব করার মত অবস্থানে রয়েছেন, তেমনিভাবে প্রথম সারির জাতীয় পত্রিকা “দৈনিক ইনকিলাবের” সম্পাদক এম এম বাহাউদ্দিন, বাংলাদেশ বেতারের উপ বার্তা নিয়ন্ত্রক ইমাম হোসেন খান, প্রয়াত সাংবাদিক আহাম্মেদ ফারুক হাসান, অনলাইন ভিত্তিক ‘জাগো নিউজের’ সাংবাদিক মহিউদ্দিন সরকার, দৈনিক প্রথম আলো’র আইটি ইনচার্জ নুরুন্নবী চৌধুরী হাসিব, নিউজ টুডে’র সহ সম্পাদক মিজানুর রহমান সাউদ, এটিএন বাংলায় কর্মরত আক্তারুজ্জামান সহ নাম না জানা অনেকেই রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন বিভাগীয় শহরে ফরিদগঞ্জ উপজেলার ঝান্ডা নিয়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।

চাঁদপুরের দৈনিক পত্রিকাগুলোর অন্যতম দৈনিক চাঁদপুর দর্পনের (জেলার সরাসরি প্রথম দৈনিক) সম্পাদক ও প্রকাশক, চ্যানেল আই এর স্টাফ রিপোর্টার, দৈনিক যুগান্তরের সাবেক প্রতিনিধি ও চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারন সম্পাদক ও সভাপতি ইকরাম চৌধুরী, দৈনিক চাঁদপুর সংবাদের সম্পাদক আবদুর রহমান, সময় টিভি ও দৈনিক কালের কন্ঠের ষ্টাফ রিপোর্টার ফারুক আহাম্মেদ, চ্যানেল নাইনের জেলা প্রতিনিধি ও দৈনিক সমকালের ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি নাছির পাঠান, আর টিভি ও দৈনিক নয়া দিগন্তের জেলা প্রতিনিধি শরিফ চৌধুরী, দৈনিক দিনকালের জেলা প্রতিনিধি মুনির চৌধুরী, দৈনিক মানব কন্ঠের জেলা প্রতিনিধি শাহাদাৎ হোসেন শান্ত, দৈনিক ইলশেপাড়ের চীপ রিপোর্টার রেজাউল করিম সহ যারা চাঁদপুরে সাংবাদিকতায় জড়িত রয়েছেন, আমরা ফরিদগঞ্জ উপজেলাবাসী তাদের নিয়ে গর্ব করতে পারি। তাদের কঠোর পরিশ্রম, ঐকান্তিক প্রচেষ্টা, নিষ্ঠা, সাংবাদিকতার গুনগত মান আমাদেরকে এই পেশায় কাজ করার জন্য প্রভাবিত করে। ভালো মানের সাংবাদিক হওয়ার আগ্রহ জোগায়।

এখানেই শেষ নয়! উপজেলার আনাচে কানাচে থেকে সংবাদের ভিতরের সংবাদ সংগ্রহ করে যারা জাতীয়, জেলা বা ফরিদগঞ্জে স্থানীয় পত্রিকায় পরিবেশন করে আমার ধারনা তারাই সংবাদ মাধ্যমের প্রান। ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই তাদের প্রতি। প্রবীন, নবীন একঝাঁক সাংবাদিক সুনাম ও সুখ্যাতির সাথে বাংলাদেশের জাতীয় সংবাদ মাধ্যম এবং চাঁদপুরের স্থানীয় পত্রিকায় কাজ করছে।

নুরন্নবী নোমানের সম্পাদনায় ‘আলোকিত ফরিদগঞ্জ’, মো. হাসান আলীর সম্পাদনায় ‘ফরিদগঞ্জ কন্ঠ’, এ, কে, এম সালাহ উদ্দিনের সম্পাদনায় ‘পল্লীকাহিনী’ এবং নূরুল ইসলাম ফরহাদ’র সম্পাদনায় অনলাইন পত্রিকা ‘ফরিদগঞ্জ টাইমস ২৪ ডটকম’। এ ছাড়াও বিল্লাল হোসেন সাগরের সম্পাদনায় ফরিদগঞ্জের পত্রিকা ‘ফরিদগঞ্জ বার্তা’, ফরিদগঞ্জের অনেকের জন্য সাংবাদিকতার একটি ক্ষেত্র তৈরী করে দিয়েছে।

এখান থেকে সাংবাদিকতার যাত্রা শুরু করে বা করলে পেশাগত জীবনে ভালো মানের একজন সাংবাদিক হওয়ার পথ সুগম হবে। তবে এর জন্য এই পত্রিকাগুলো বা সাংবাদিক সংগঠন গুলোর মাধ্যমে মাঝে মধ্যেই প্রশিক্ষন কর্মশালা বা ওরিয়েন্টেশন কর্মশালার প্রয়োজন অত্যাধিক। শিক্ষার বিকল্প কিছু নেই, তাই না জেনে না বুঝে তথ্যহীন সংবাদ অনেক সময়ই সাংবাদিকের জন্য ঝুঁকি বা বিপদ ডেকে আনতে পারে। এ জন্য প্রচুর পড়তে হবে, শিখতে হবে, নিয়মকানুন জানতে হবে। সর্বপরি সকল সাংবাদিককে ভেদাভেদ ভুলে এককাতারে থেকে সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধি করে কাজ করাটাও প্রয়োজন।

সাংবাদিকদের ভূল বুঝিয়ে, বিভেদ সৃষ্টি করে, ঐক্যের ফাটল তৈরী করে রাখার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছেন কিছু অসাধূ ও মাফিয়ারা। তাদের অবৈধ কর্মকান্ডের বিরুদ্ধচারন না করার জন্যই তারা এ প্রক্রিয়াকে জোর সমর্থন দিয়ে একাধীক গ্রুপে বিভক্ত বা এবই নামে একাধীক সংগঠন তৈরীর সহযোগিতা করছেন। সংবাদের স্বার্থে একজন সাংবাদিকের জন্য সকলেই যেমন আপন একইসাথে পরও বটে।

আমাদের অর্থাৎ সকল সাংবাদিককে বিভেদ ভূলে শূধু দেশও জাতীর স্বার্থে, নিজেদের নিরাপত্তার প্রশ্নে সংবাদ এবং সাংবাদিকতাকে গুরুত্ব দিয়ে একটি ঐক্যমতে পৌছাতে হবে দ্রুততম সময়ের মধ্যে। আর সেটা বোধহয় তখনই সম্ভব, কোন রাজনৈতিক দল বা নেতার পুজারী না হলে। কোন বিশেষ ব্যক্তির অনুসারী না হলে বা তার থেকে বিশেষ সুবিধা না নিলে।

লেখক: আরটিভি এবং আমার দেশ পত্রিকার সাবেক উপজেলা প্রতিনিধি। বর্তমানে চাঁদপুর বার্তার উপজেলা প্রতিনিধি।