সাহসী সাংবাদিক সাইরিল আলমিদা

Wednesday, 19/10/2016 @ 2:29 am

:: প্রেসবার্তাডটকম ডেস্ক ::

almida-downজঙ্গি দমন নিয়ে পাকিস্তান সরকার ও সেনাবাহিনীর ভেতরের দ্বন্দ্বের খবর প্রকাশকে কেন্দ্র করে সাহসী সাংবাদিক হিসেবে উচ্চারিত হচ্ছে সাইরিল আলমিদার নাম। এই ইস্যুতে আলমিদা ও ডন পত্রিকার জোরালো অবস্থান প্রশংসিত হয়েছে।
সাইরিল আলমিদা ডন পত্রিকার সহকারী সম্পাদক। করাচিতে তাঁর জন্ম। বিভিন্ন সূত্র থেকে পাওয়া তথ্য অনুসারে, আলমিদা লাহোর ব্যবস্থাপনা বিজ্ঞান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ২০০৩ সালে অর্থনীতিতে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। ২০০৪ সালে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রোডস বৃত্তি পান। পরে ওই একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।

ইংল্যান্ডে পড়াশোনা শেষে আলমিদা করাচিতে ফিরে যান। এক বছর তিনি আইনজীবী হিসেবে কাজ করেন। পরে সাংবাদিকতায় আসেন। ডন পত্রিকা থেকেই তাঁর সাংবাদিকতা পেশা শুরু। ২০১৩ সালে সহকারী সম্পাদক হিসেবে পদোন্নতি হয় তাঁর। অন্যান্য সংবাদমাধ্যমেও প্রায়ই প্রদায়ক হিসেবে লেখালেখি করেন আলমিদা।

আলমিদা ‘গোয়ান ক্যাথলিক’ সম্প্রদায়ের। গোয়ান ক্যাথলিকদের আদিবাস ভারতের গোয়ায়। ভারত-পাকিস্তান বিভক্ত হওয়ার পর গোয়ান ক্যাথলিক সম্প্রদায়ের অনেকেই পশ্চিমা দেশগুলোতে পাড়ি জমিয়েছে। কিছু পরিবার রয়ে গেছে পাকিস্তানে।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে জানা যায়, ২০১২ সালে সংস্কৃতি-বিষয়ক একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আলমিদা গোয়ায় যান। এর পরেও বেশ কয়েকবার তিনি সেখানে সফর করেন। ২০১৫ সালে গোয়া সফরে যান আলমিদা। ওই বছরের ডিসেম্বরে টাইমস অব ইন্ডিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, দুই প্রজন্ম আগেও কোনকানি ভাষায় তাঁরা কথা বলতেন। তবে এখন ইংরেজি ভাষায় কথা বলতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। আলমিদা বলেন, গোয়ার লোকজন খুবই অতিথিপরায়ণ।

শুধু জঙ্গি দমন নিয়ে পাকিস্তান সরকার ও সেনাবাহিনীর মধ্যকার দ্বন্দ্বের খবরই নয়, সাইরিল আলমিদার উল্লেখযোগ্য কলাম হলো হেটিং মালালা, ডোন্ট ডু ইট, প্রাইম মিনিস্টার, আন্ডারস্ট্যান্ডিং ইমরান, ফেইলড পলিসি অর ফেইলড স্টেট প্রভৃতি।